শওকত আলী
বই - ১ টি

অবিভক্ত ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ১৯৩৬ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি দিনাজপুর | জেলার রায়গঞ্জ থানায় শওকত আলীর জন্ম। বাবা খােরশেদ আলী সরকার মা সালেমা খাতুন। প্রাথমিক শিক্ষা শুরু রায়গঞ্জের শ্রীরামপুর | মিশনারী স্কুলে। ১৯৫১ সালে প্রথম বিভাগে ম্যাট্রিকুলেশন পাশ করেন। | বিভাগােত্তরকালে তার পরিবার সাম্প্রদায়িক রােষাণলের শিকার হয় এবং | ১৯৫১ সালের শেষের দিকে ১৫ বছর বয়সের শওকত আলী ভাইবােন নিয়ে রাতের অন্ধকারে দিনাজপুর শহরে চলে আসেন। এই বছরেই তিনি | দিনাজপুর সুরেন্দ্রনাথ কলেজে ইন্টারমিডিয়েটে ভর্তি হন। ইতােমধ্যে নব্য | ঔপনিবেশিক পাকিস্তান সরকারের শােষণপীড়নে তরুণসমাজে প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়, বামপন্থি দলগুলাে সােচ্চার হয়ে ওঠে। এসময় তিনি ছাত্র | রাজনীতিতে যােগ দিয়ে কারারুদ্ধ হন। জেলে অন্তরীন অবস্থায় তিনি | রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব হাজী দানেশ ও বরদা চক্রবর্তী প্রমুখের সাথে রাজনৈতিক মতাদর্শ আলােচনায় ক্রমশ রাজনীতি সচেতন হয়ে ওঠেন। দশ মাসাধিকাল অন্তরীন থেকে মুক্ত হয়ে ১৯৫৩ সালে ইন্টারমিডিয়েট | পাশ করেন। ১৯৫৫ সালে তিনি বিএ পাশ করেন এবং একই বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলায় এমএ ভর্তি হন। আর্থিক সংকটের কারণে তাঁকে ঢাকা থেকে দেশে প্রত্যাবর্তন করতে হয়। এই সময় তিনি দিনাজপুরে একটি স্কুলে কয়েকমাস শিক্ষকতা করেন। ১৯৫৬ সালে শওকত আলী পুনরায় ঢাকা আসেন এবং ১৯৫৮ সালে এম এ পাশ করেন।
বীরগঞ্জ হাইস্কুলে প্রধান শিক্ষক হিসেবে কর্মজীবনের সূত্রপাত হয়। এরপর ঠাকুরগাঁও কলেজে অধ্যাপনা করেন। ১৯৬২ সালে পুনরায় ঢাকা গমন করেন। পত্রিকায় নাটকের সমালােচনা লেখার সুবাদে সিকান্দার আবু জাফর ও অজিত গুহ-এর সহযােগিতায় ঐতিহ্যবাহী জগন্নাথ কলেজে | প্রভাষক হিসেবে যােগদান করেন। ১৯৯০ সালে আনন্দমােহন কলেজে বদলি হন। ১৯৯১ সালে সংগীত মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ পদে নিয়ােগ পান। ১৯৯৩ সালে তিনি অবসর গ্রহণ করেন।
ইতিহাস, নৃ-বিজ্ঞান ও ঐতিহ্যের প্রতি তার ছিল বিশেষ ঝোঁক। শ্রমজীবী মানুষের প্রতি একান্তভাবেই সমীকৃত। শিল্পী জীবনের শুরু থেকেই দায়বদ্ধ সাহিত্যিকের ভূমিকা অবতীর্ণ। সেই আর্দশেই ছিল তাঁর সমস্ত জীবন সাহিত্য-সাধনা।
২০১৮ সালে ২৫ জানুয়ারি এই অমর কথাশিল্পী রাজধানীর পিজি হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন।

ক্যাটাগরী