ফারুক চৌধুরী
বই - ১ টি

জন্ম ১৯৩৪ সালের ৪ জানুয়ারি । ভারতের আসামের করিমগঞ্জে। পৈতৃক বাড়ি সিলেট জেলার গােলাপগঞ্জ থানার বারকোট গ্রামে। শিক্ষাজীবন শেষে পাকিস্তান ফরেন সার্ভিসে যােগদান করেন। শিক্ষানবিশ কূটনীতিক হিসেবে তিনি বােস্টনের ‘ফ্লেচার স্কুল অব ল অ্যান্ড ডিপ্লোমেসি’তে অধ্যয়ন করেন। ওয়াশিংটনের স্টেট ডিপার্টমেন্ট ও লন্ডনের ফরেন অফিসে তিনি প্রশিক্ষণ লাভ করেন এবং প্যারিসের আলিয়াস ফ্রাসে-তে ফরাসি ভাষা অধ্যয়ন করেন। পাকিস্তানি আমলের। চাকরিজীবন কাটান রােম, বেজিং, দি হ্যাগ এবং আলজিয়ার্সে। ১৯৬৯ সাল থেকে বাংলাদেশের জন্ম অবধি : তিনি যথাক্রমে ইসলামাবাদ এবং ঢাকা পররাষ্ট্র দফতরের। শাখা অফিসে কর্মরত ছিলেন। স্বাধীনতার পর তিনি বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রাচারপ্রধান হিসেবে নিয়ােজিত হন। ১৯৭২ থেকে ১৯৭৬ সাল পর্যন্ত তিনি লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশনে ডেপুটি হাইকমিশনার এবং ১৯৭৬ সালে আবুধাবিতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের দায়িত্বপালন করেন। ১৯৭৮ সালে ব্রাসেলসে যান বেনেলুক্স দেশসমূহ এবং ইওরােপীয় সাধারণ বাজারের রাষ্ট্রদূত হিসেবে। ১৯৮২ সালে তাকে ঢাকায় অনুষ্ঠিত ইসলামি পররাষ্ট্রমন্ত্রী সম্মেলনের প্রধান সমন্বয়কারীর দায়িত্ব প্রদান করা হয়। ১৯৮৪ সালে। তিনি পররাষ্ট্রসচিব নিযুক্ত হন। ১৯৮৫ সালে সার্কের জন্মলগ্নে স্বাগতিক বাংলাদেশের পররাষ্ট্রসচিব হিসেবে তিনি প্রথম সার্ক শীর্ষ সম্মেলনের মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮৬ সাল থেকে ১৯৯২ সালে চাকরিতে অবসর নেওয়া অবধি ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার ছিলেন। জাতিসংঘসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ফোরামে তিনি বহুবার বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। ১৯৯৪ সালে ঢাকায় অনুষ্ঠিত সপ্তম সার্ক শীর্ষ সম্মেলনে তিনি সম্মেলনের প্রস্ততি কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। চাকরিতে অবসরগ্রহণের পর থেকে তিনি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা। ব্র্যাকের উপদেষ্টা হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। জীনাত চৌধুরী তাঁর সহধর্মিণী। তাঁদের এক পুত্র ও এক কন্যাসন্তান।

ক্যাটাগরী